Archive for the ‘Tips’ Category

আশা করি সবাই ভালই  আছেন, কোনও কারন বসত যদি না থাকেন, ১০০% গ্যারেন্টী দিচ্ছি, এটা ব্যাবহার করলে হয়ে যাবেন।

মাত্র ১২.৪৩ MB-র দ্বারা আপনার মাথা কে-ই বানিয়ে ফেলুন আপনার কম্পিউটার-এর মাউস।
আজ নেট ঘাঁটতে ঘাঁটতে এই আদ্ভুত সফটওয়্যার টি আচমকাই খুঁজে পেলাম। তাই, শেয়ার না করে থাকতে পারলাম না। : )
এবার আমার স্টাইলে দেখে নিন Software টির Details:
Name: Camera mouse 2012
Size: ১২.৪৩ MB
License: Freeware (অর্থাৎ লাইসেন্স কি-এর গল্প নেই)
OS: Windows XP / Vista / 7 / 8 32-bit
Released on: 24th November, 2012
*Requirements: One computer, Electricity, & Webcam
শুধু ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নিলেই হবে।
এবার বলি সফটওয়্যার টি কি করবে, আপনি যখন সফটওয়্যার টি ওপেন করবেন, তখন স্ক্রীন-এ আপনার ছবি ওয়েবক্যাম-এর মাধ্যমে আসবে, এরপর আপনাকে, আপনার মুখের যে কোনও অংশ সিলেক্ট করতে হবে। তারপর সফটওয়্যারটি আপনার দেখিয়ে দেওয়া স্থান কে  ক্রমাগত trace করবে, আর সেই মত মাউস পয়েন্টার-ও নড়বে। তবে মুখের একটি অংশ সিলেক্ট করার সময় নাক কে বাছলেই ভালো হয়, কেননা ওটা মোটামুটি স্ক্রীন-এর মাঝে থাকে, তাই স্ক্রীন ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার সম্ভবনা কমে যাবে।
আর কয়েকটি কথা বলি, সফটওয়্যার টি প্রচণ্ড সংবেদনশীল, তাই শুরু করার সময়ের জন্য কিছু সেটিংস্‌ recommend করছি, যাতে আপনাদের ব্যাবহার করতে সুবিধা হয়।
প্রথমে, Settings থেকে “Clicking” ট্যাব-এর সব কটি box-এ tick মেরে দিন।
চিত্রঃ  এবার, মাউস হিসাবে কাজ করবে আপনার নিজের মাথা 100% সত্য।
এর পর “Control” tab-এও সব box-এ tick দিন।
চিত্রঃ
 এবার, মাউস হিসাবে কাজ করবে আপনার নিজের মাথা 100% সত্য।
এরপর “Gains”-এর দুটো option-এই “very low” select করুন।
চিত্রঃ
 এবার, মাউস হিসাবে কাজ করবে আপনার নিজের মাথা 100% সত্য।
এরপর “Misc.” tab থেকে প্রথম option টি কে Extreme করুন।
চিত্রঃ
 এবার, মাউস হিসাবে কাজ করবে আপনার নিজের মাথা 100% সত্য।
এরপর Alt+D press করে OK করে দিন।
ব্যাস কাজ শেষ।
এরপর আরামে ব্যাবহার করুন।
এখানে DIRECT ডাউনলোড লিংক দেওয়া আছে  , তাই দ্রুত ডাউনলোড করুন এখানে

কাজের মাঝে মাঝে সিস্টেম রিফ্রেশ করে তা ভাল থাকে। এভাবে কত করা যায় বলুন, কতবার করব, কতক্ষণ করব??? এত বার রিফ্রেশ করতে ভাল লাগে বলুন! না, ভাল লাগে না। এজন্যই তো এটি আপনাদের জন্য নিয়ে আসা। নিচের কোডটি কপি করে নোটপ্যাডে পেষ্ট করুন। এবার নোটপ্যাডটি refresh.cmd নামে সেভ করুন।

Echo Off

cd/

tree

C:

Tree

D:

Tree

E:

Tree

F:

Tree

G:

Tree

H:

Tree

I:

Tree

J:

Tree

K:

Tree

L:

Tree

M:

Tree

N:

Tree

O:

Tree

P:

Tree

Q:

Tree

R:

Tree

S:

Tree

T:

Tree

U:

Tree

V:

Tree

W:

Tree

X:

Tree

Y:

Tree

Z:

Tree

এবার ফাইলটির উপর ডাবল ক্লিক করুন। তাহলে রিফ্রেশ শুরু হবে।

কম্পিউটারে কাজ করার ফলে টেম্প ও রিসেট ফোল্ডারে অপ্রয়োজনীয় ফাইল জমা হয়। যা সিস্টেমকে ধীর গতি সম্পন্ন করে। এর জন্য নিয়মিত এগুলো পরিষ্কার করতে হয়। যা বিরক্তিকরও বটে। যাক আপনি ইচ্ছা করলে মাত্র ১ ক্লিকে এগুলো পরিষ্কার করতে পারেন। এজন্য নিচের কোডগুলো কপি করে নোটপ্যাডে পেষ্ট করুন। এবার নোটপ্যাডটি Digitalzone.bat নামে সংরক্ষণ করুন।

 

@del /F/S/Q %temp%

@del /F/S/Q %windir%\temp

@del /F/S/Q “C:\Documents and Settings\user name\Recent”

@Echo off

Echo.

Echo Complete

Echo.

pause

exit

এবার ফাইলটিতে ডাবল ক্লিক করুন। তাহলেই হবে। আর User name এর জায়গায় আপনার সিস্টেমের ইউজার নেইম দিতে হবে।

একদম ভিন্ন উপায়ে ফোল্ডার হিডেন

আমরা সবাই কম-বেশি ফোল্ডার হিডেন করতে অভ্যস্ত, তাই না? কিভাবে হিডেন করি? প্রথমে ফোল্ডারটির Properties যাই, তারপর Hidden চেক করে Ok করে বেরি আসি। এরপর Folder Option >>> View ট্যাব থেকে Do not show hidden files and folders চেক করে File Hidden করি। এই পদ্ধতিটি সবারই জানা আছে, কি বলেন? তাই আপনাদের জন্য এই ভিন্ন উপায়। দেখুন আর চেষ্টা করুনঃ

প্রথমে একটি ফোল্ডার তৈরি করুন। এবার এটিকে Rename করুন। এবার Alt কী চেপে 0160 লিখুন এবং এন্টার দিন। দেখুন ফোল্ডারটির নাম নেই এবং আপনি নাম ছাড়াই ফোল্ডারটিতে কাজ করতে পারবেন। এবার ফোল্ডারটির Properties এ যান। Customize ট্যাবে যান ও Change Icon এ ক্লিক করুন। এখানে অনেকগুলো আইকন দেখতে পাবেন। নিচের স্কোলবারটি টেনে ভিতরের দিকে যান। তারপর একটি ছবি ছাড়া আইকন দেখতে পাবেন। তা নির্বাচন করে OK, OK করে বেরিয়ে আসুন। এখান দেখুন আপনার ফোল্ডারটি কোথায়?

পাল্টিয়ে ফেলুন উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ারের টাইটেল

বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম হল মাইক্রোসফট উইন্ডোজ। উইন্ডোজের একটি বিল্টইন প্রোগ্রাম হল উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ার। এর মাধ্যমে গান শুনা যায়। এটি চালু করলে টাইটেল লেখা থাকে Windows Media Player. আচ্ছা বলুন তো আর কতো এই নাম আমরা দেখব? আমাদের ইচ্ছে কি করে না যে আমাদের নাম লেখতে? ঠিক বলেছেন, ই্চ্ছা করে। কিন্তু কীভাবে?

  • স্টার্ট মেনু থেকে রানে গিয়ে Regedit লিখে এন্টার করুন।
  • তাহলে রেজিষ্ট্রি এডিটর খুলবে।
  • এবার এই ঠিকানায় যানঃ HKEY_USERS \ .DEFAULT \ Software \ Policies \ Microsoft \ WindowsMediaPlayer
  • এবার একটি স্ট্রীং ভ্যালু তৈরি করুন। স্ট্রীং ভ্যালুর জন্য উইন্ডোর খালি জায়গায় মাউসের রাইট বাটন ক্লিক করুন। তাহলে একটি মেনু আসবে। মেনু থেকে New >>> String Value এ ক্লিক করুন।
  • String Value টির নাম দিন MediaPlayerName.

এবার ভ্যালুটির উপর ডাবল ক্লিক করুন। এবং Value বক্সে লিখুন  Jakuan, তারপর এন্টার চাপুন।

  • এবার রেজিষ্ট্রি এডিটর বন্ধ করুন।

ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের টাইটেলবারে দিন নিজের নাম

উইন্ডোজের বিল্ট-ইন সফটওয়্যারগুলোর মধ্যে অন্যতম হল ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার। যা ইন্টারনেট ব্রাউজে ব্যবহার করা হয। তাহলে আপনি অবশ্যই দেখে থাকবেন, আপনার ব্রাউজারের টাইটেলবারে লেখা থাকে Microsoft Internet Explorer. আপনি ইচ্ছা করলে এটা পরিবর্তন করে আপনার নাম লিখতে পারেন।

তাই নাকি, কীভাবে???

কাজ বেশি না। নোটপ্যাড খুলে নিচের কোডটুকু কপি করে পেষ্ট করুন ও Jakuan.reg লিখে সেভ করুন।

Windows Registry Editor Version 5.00

[HKEY_CURRENT_USER\Software\Microsoft\Internet Explorer\Main]

“Window Title”=”Internet Explorer Provided Jakuan”

সেভ করার পর এটি ডাবল ক্লিক করুন, তাহলে এটি চালু হবে। এবার ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার খুলুন আর দেখুন অবস্থা।

তবে আমি ইচ্ছা করলে বাংলায় আপনার নাম লিখতে পারবেন। এক্ষেত্রে নাম লিখে সেভ ডায়ালগ বক্সের Encoding এ ড্রপ ডাউন মেনু থেকে Unicode সিলেক্ট করুন ও সেভ করুন।

মজিলা ফায়ারফক্সের টাইটেলবারে দিন নিজের নাম

ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের পর এবার আসুন জনপ্রিয় ইন্টারনেট ব্রাউজার মজিলা ফায়ারফক্সে। এখানেও একই অবস্থা। আপনি টাইটেলবারে আপনার নাম দিতে পারবেন। যা করতে হবে, তা হলঃ

  • C:\Program Files\Mozilla Firefox ফোল্ডারে যান।
  • chrome ফোল্ডারটি ওপেন করে en-US.jar নামক ফাইলটি WinRAR, 7-Zip বা WinZip এর মাধ্যমে ওপেন করুন। (এক্ষেত্রে ফাইলটি অন্য কোথাও বা অন্য নামে রিনেম করে ব্যকআপ করে রাখুন)।
  • locale\branding খেকে brand.dtd নামক ফাইলটি নোটপ্যাড দিয়ে ওপেন করুন। তাহলে নিচের কোডটি দেখতে পাবেন।

<!ENTITY  brandShortName        “Firefox”>

<!ENTITY  brandFullName         “Mozilla Firefox”>

<!ENTITY  vendorShortName       “Mozilla”>

  • এ কোডের পরিবর্তে নিম্নের কোড টাইপ করুন।

<!ENTITY  brandShortName        “Firefox”>

<!ENTITY  brandFullName         “Mozilla Firefox Provided by Jakuan “>

<!ENTITY  vendorShortName       “Mozilla”>

  • এবার File মেনু থেকে Save ক্লিক করুন।
  • এবার নোটপ্যাডটি Close করুন ও প্রাপ্ত ডায়ালগ বক্সে Yes বাটনে ক্লিক করুন।
  • এবার en-US.jar নামক ফাইলটি Close করুন।

শেষ আপনার কাজ। এবার ফায়ারফক্স ওপেন করুন আর দেখুন পরিবর্তনটা।


বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম হচ্ছে মাইক্রোসফট উইন্ডোজ। উইন্ডোজের বিভিন্ন সংরক্ষণের পর এখন বাজারে এসেছে উইন্ডোজ ভিস্তা ও উইন্ডোজ ৭। তবুও উইন্ডোজের সকল সংক্ষরণের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় ছিল উইন্ডোজ এক্সপি। এরই মধ্যে মাইক্রোসফট কর্পোরেশন ২০১২ সালের মধ্যে এক্সপিকে ব্যান্ড করে দেয়ার ঘোষণা করেছে। আমাদের মধ্যে অনেক ব্যবহারকারি আছেন যারা উইন্ডোজ ভিস্তা ও সেভেন ব্যবহারে বিরক্তি বোধ করেন। এক্সপির ব্যবহার এত সহজ যে, যেকোন সাধারণ ব্যবহারকারি খুব সহজেই ব্যবহার করতে পারতেন। বর্তমান বাজারে যেসব ল্যাপটপ কম্পিউটার আসছে সেগুলোর বেশিরভাগই ভিস্তার ডিজাইনে তৈরি। যার কারণে এসব কম্পিউটারে এক্সপি সেটআপ দিতে গেলে একটি এরর ম্যাসেজ আসে Setup did not find any hard disk… ফলে উক্ত কম্পিউটারগুলোতে এক্সপি সেটআপ দেয়া যায় না।

- তাহলে কি সেটআপ দেয়া সম্ভব নয়?

- অবশ্যই সম্ভব। তেমন কষ্টকর কাজ নয়। শুধু নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

প্রয়োজনীয় উপকরণ

আপনাকে একটি উইন্ডোজ এক্সপির নতুন সিডি তৈরি করতে হবে। কোন সমস্যা নেই। মাত্র কয়েকটি জিনিস হলেই হবে। তবে আসুন আস্তে ধীরে জানতে চেষ্টা করি।

সাটা ড্রাইভারের জন্য আপনি যেকোন ল্যাপটপ কোম্পানীর ওয়েবসাইট থেকে বা গুগল সার্চে SATA লিখে সার্চ করলেও সাটা ড্রাইভার পাবেন। তবে বেশিরভাগ কম্পিউপটারেই Toshiba কোম্পানীর সাটা হার্ডডিস্ক দেয়া থাকে। তাই Toshiba হার্ডডিস্ক ড্রাইভার দিয়ে উইন্ডোজ এক্সপির একটি সিডি তৈরি করে নিলেই হয়।

যখন উইন্ডোজ এক্সপি বাজারে আসে তখন ল্যাপটপের প্রচলন ছিল না। যার কারণে উইন্ডোজ এক্সপির সিডিতে সাটা ড্রাইভার দেয়া হয় নি। কিন্তু বর্তমানে সাটা হার্ডডিস্কে ল্যাপটপে ব্যবহারের ফলে ল্যাপটপে উইন্ডোজ এক্সপি ইন্সটল করা যায় না। আর সাটা ড্রাইভার না থাকায় Setup did not find any hard disk… ম্যাসেজ আসে। তার মানে উইন্ডোজ হার্ডডিস্ক পড়তে পারে না। এখন আপনাকে তেমন কাজ করতে হবে না। শুধু এক্সপির সিডিতে সাটা ড্রাইভারটি সংযুক্ত করতে হবে।

কার্যপ্রণালী

v  এনলাইট, আইএসও বুস্টার, মাইক্রোসফটের ডট নেট ২.০ সেটআপ করুন।

v  উইন্ডোজ এক্সপির সিডি নিন ও কম্পিউটারের প্রবেশ করান।

v  আইএসও বুস্টারের লাঞ্চ স্ক্রীণ থেকে bootable disc -এ ক্লিক করুন।

v  এরপর Microsoft Corporation.img এ ক্লিক করে Extract Microsoft Corporation.img ক্লিক করুন।

v এবার ইমেজটি সংরক্ষন করুন।

আমরা যখন Windows XP Setup করি, তখন সেটআপের প্রথমে আসে Press any key to boot from CD….. ম্যাসেজ। এটি হচ্ছে Microsoft Corporation.img এর কাজ। আপনি যদি কোন ফোল্ডারে এক্সপি কপি করে রাখেন ও পরবর্তীতে তা সিডিতে রাইট করেন তখন Microsoft Corporation.img এটি কাজ করবে না। এর কারণেই ইমেইজটিকে সিডি রাইট করার আগে এনলাইট সফটওয়্যার দিয়ে ঠিক করে নিতে হবে। তবে আপনি ইচ্ছা করলে এটি গুগল সার্চে গিয়ে সেভ করে নিতে পারেন।

v  এবার একটি ফোল্ডারে এক্সপির ফাইলগুলো কপি করুন এবং উক্ত ফোল্ডারে Microsoft Corporation.img ফাইলটিও কপি করে রাখুন।

v যে কম্পিউটারের জন্য সিডি তৈরি করবেন উক্ত কম্পিউটারের সাটা ড্রাইভারগুলো একটি রিমুভাল ডিস্কে কপি করে রাখুন।

v  রিমুভাল ডিস্কের জিপ ফাইলগুলো Extract করুন।

v  এবার ফোল্ডার ছাড়া অন্য ফাইলগুলো কপি করুন।

এবার উইন্ডোজ এক্সপিতে সাটা ড্রাইভার যুক্ত করার কাজ

  • এনলাইট সফটওয়্যারটি চালু করুন।
  • Next করে Browse এ ক্লিক করে এক্সপির ফাইলগুলো দেখিয়ে দিন।
  • Next করে Drives এবং Bootable ISO নির্বাচন করুন।
  • আবার Next করুন। Insert এ ক্লিক করে রিমুভাল ডিস্কের SATA Driver গুলো যুক্ত করুন।
  • এরপর Next বাটনে ক্লিক করলে Do you want to start the process? আসবে। Yes দিন, তাহলেই Process শুরু হবে।
  • প্রসেস শেষ হলে Next করলে Bootable ISO উইন্ডো আসবে।
  • এখান থেকে আপনি সরাসরি সিডিতে রাইট করতে পারবেন বা বুটেবল ইমেজ তৈরী করতে পারবেন পরবর্তিতে রাইট করার জন্য। বুটেবল ইমেজ তৈরী করতে Mode এ Create Image নির্বাচন করে Label লিখে Make ISO বাটনে ক্লিক করুন।

তবে সিডি রাইট করার আগে অবশ্যই Microsoft Corporation.img টি যুক্ত করতে ভুলবেন না।

অপারেটি সিস্টেমগুলোর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে উইন্ডোজ। উইন্ডোজের বিভিন্ন সংরক্ষণের মধ্যে জনপ্রিয় হল উইন্ডোজ এক্সপি। উইন্ডোজ এক্সপি সেটআপ দেয়ার পর ডিফল্ট বুট স্ক্রিণ হিসেবে আসে মাইক্রোসফটের লগো। আর কত? কত দেখব এই লগো? এখন আপনি চাচ্ছেন আপনার পচন্দের ছবি দেখতে আপনার কম্পিউটারের বুট স্ক্রীণে। সমস্যা ঐ একটি জায়গায়। কীভাবে পরিবর্তন করা যাবে লগোটি, তাই না? কোন সমস্যাই না। কবে একটু কষ্ট করতে হবে, বৈকী। বুট স্ক্রীণ পরিবর্তন করতে নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

  •  ৬৪০*৪৮০ পিক্সেল ও 16 Color Bitmap মুডে একটি ছবি নিন।
  •  এর জন্য আপনি এমএস পেইন্ট বা এডোবি ফটোসপ ব্যবহার করতে পারেন।
  •  এবার ছবিটি boot নামে C:\Windows ফোল্ডারে সংরক্ষণ করুন।
  •  এবার মাই কম্পিউটার ওপেন করুন।
  •  Tools >>> Folder Options এ ক্লিক করুন।
  •  View ট্যাবে Show hidden files and folders নির্বাচন করুন।
  • একই ট্যাবে Hide protected operating system files (Recommended) অপশনটি আনচেক করুন।
  • এবার সি ড্রাইভে প্রবেশ করুন ও boot.ini ফাইলটা খুঁজে বের করুন।
  • ফাইলটি Read only অবস্থায় আছে। এর Read only আনচেক করতে, ফাইলটির উপর মাউসের রাইট বাটন ক্লিক করুন ও মেনু থেকে Properties এ ক্লিক করুন।
  • এবার Read only আনচেক করুন ও ok করে বেরিয়ে আসুন।
  • এবার boot.ini ফাইলটিকে নোটপ্যাডে খুলুন।
  • তাহলে অনেকটা নিচের মতো দেখাবে।

[boot loader]
timeout=30
default=multi(0)disk(0)rdisk(0)partition(1)\WINDOWS
[operating systems]
multi(0)disk(0)rdisk(0)partition(1)\WINDOWS=”Microsoft Windows XP Professional” /noexecute=optin /fastdetect

  • এখানে দেখুন /fastdetect লেখা দেখতে পাচ্ছেন।
  • এই লেখার পরে একটা ফাঁকা জায়গা রেখে নিচের কোডটি লিখুন ও boot.ini ফাইলটি সংরক্ষণ করুন।

/bootlogo /noguiboot

  • এবার আপনার সিস্টেম রিবুট করুন।
  • কোডটি দেখতে এই রকম হবে।

[boot loader]
timeout=30
default=multi(0)disk(0)rdisk(0)partition(1)\WINDOWS
[operating systems]
multi(0)disk(0)rdisk(0)partition(1)\WINDOWS=”Microsoft Windows XP Professional” /noexecute=optin /fastdetect /bootlogo /noguiboot

আমরা আমাদের USB DISK(pendrive, memory card) ফরম্যাট করতে চাইলে অনেক সময় তা ফরম্যাট হয় না । এর জন্য আমাদের কম-বেশি সবাইকে ভোগান্তি তে পড়তে হয়। এ সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে নিচের উপায় অবলম্বন করুন

1.My computer এর উপর right-click করে manage এ double click করুন।

2.এরপর Disk management এ double-click করে ডান দিক থেকে আপনার পেন ড্রাইভ

right click করে ফরম্যাট click করে Quick format এ ক্লিক করুন & FAT32 থেকে FAT

select করে Ok করুন।

format করার পর নিচের লিখাটি একটি নোটপ্যাড এ copy+paste করুন

title ABBA!
=====================================================
==========convert c: /FS:NTFS
==========convert d: /FS:NTFS
==========convert e: /FS:NTFS
==========convert f: /FS:NTFS
==========convert g: /FS:NTFS
==========convert i: /FS:NTFS

আমরা এর আগে কম্পিউটার এর ফোল্ডার কিভাবে লুকিয়ে রাখতে হয় তা দেখেছি।কিন্ত আমাদের এরকম হাজার হাজার ফাইল থাকে যেগুলি private হিসেবে রাখার ইচ্ছা থাকলেও সব গুলি আর hide করা যায় না।কিন্ত এমন যদি হয় আপনি আপনার পুরো ড্রাইভটা কেই লুকিয়ে রাখলেন তাহলে কেমন হয়???

হ্যা বন্ধুরা, এবার আমি আপনাদের সে রকম টিপ্‌স এ দিচ্ছি ।

১।প্রথমে start থেকে run এ গিয়ে লিখুন gpedit.msc এবং রান করান

২। ডান দিকে user configuration এ ক্লিক করুন

৩। Administrative templates এ ক্লিক করুন

৪।windows components এ ক্লিক করুন

৫। windows explorer এ ক্লিক করুন

৬। এর পর hide these specified drives in My Computer এ ক্লিক করুন

৭। এরপর আপনি not figured থেকে enable করে নিন এবং আপনি কোন ড্রাইভ লুকাতে চান সেটি উল্লেখ করে দিন।

restrict all drive থেকে স্ক্রল করে যে কোন ড্রাইভ দিয়ে apply করে বের হয়ে আসুন এবং আপনার কম্পিউটার এ দেখুন আপনার hide করা drive র নেই।

এভাবে আপনি আবার আগের drive ta ফিরিয়ে আনতেও পারবেন…

কেমন আছেন?

আজ আমি আপনাদের কে শিখাবো কম্পিউটার কে কিভাবে auto refresh করা যায়।

নিচের প্রোগ্রাম টি একটি নোটপ্যাড এ লিখে সেভ করুন sr5.reg নামে ।

Windows Registry Editor Version 5.00

[HKEY_LOCAL_MACHINE\SYSTEM\CurrentControlSet\Control\Update]
“UpdateMode”=dword:00000000

[HKEY_CURRENT_USER\Software\Microsoft\Windows\CurrentVersion\Explorer\Advanced]
“NoNetCrawling”=dword:00000000

এবার সেভ করা প্রোগ্রাম টি ডাবল ক্লিক করুন। yes+ok চাপুন। কম্পিউটার restart দিন ১ বার

ব্যাস, এরপর আর আপনাকে কষ্ট করে কম্পিউটার refresh করতে হবে না

প্রথমেই start থেকে run এ যান এবং লিখুন
regedit
এরপর নিচের সিরিয়াল অনুযায়ী serially ক্লিক করতে থাকুন
[HKEY_CURRENT_USER\Software\Microsoft\Windows\CurrentVersion\Policies\Explorer]

সিরিয়ালি ক্লিক করার পর বাম পাশে NoDriveTypeAutoRun এ ডাবল ক্লিক করুন এবং মান বসান ff
ok করুন

এবার আবার start থেকে run এ যান এবং লিখুন regedit
এরপর নিচের সিরিয়াল অনুযায়ী serially ক্লিক করতে থাকুন
[HKEY_USERS\.DEFAULT\Software\Microsoft\Windows\CurrentVersion\Policies\Explorer]

সিরিয়ালি ক্লিক করার পর বাম পাশে NoDriveTypeAutoRun এ ডাবল ক্লিক করুন এবং মান বসান ff
ok করুন.
ব্যস হয়ে গেল আপনার কম্পিউটার autorun ভাইরাস মুক্ত।
এবার আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন